Tuesday, May 31, 2011

চাকরি ছাড়ার ইতিকথা

যেখানে যতদিন চাকরি করেছি নিজের প্রতিষ্ঠান মনে করে কাজ করেছি। নিজের চাইতেও অনেক সময় প্রতিষ্ঠানকে বেশি প্রাধান্ন দিয়েছি। আমি সবসময় কাজের সময় ও দায়িত্ব সচেতন থাকার চেষ্টা করেছি।

এখন আসল কথায় আশা যাক। অঙ্কুরে কেন চাকরি করতে আসলাম তা অনেক আগের কথা। এখন প্রশ্ন হচ্ছে কেন ছাড়লাম? এর উত্তর বা কারন সব এখন বলা কষ্টকর বা বলতে চাইও না। তবে কয়েকটি কারন বলা যায়, বাকি গুলা অন্যকোন ভাবে পরর্বতীতে বলতে হবে। তেমনই কয়েকটি আজ বলছি …........

০১।
০২।
০৩।
০৪। চিত্রগুপ্ত হয়ে আর কত কালই বা থাকিব। প্রচলিত প্রবাদ আছে "যাহার জন্য করলাম চুরি সেই কয় চোর"
০৫। এখানে আমার প্রযোজন শেষ হয়ে আসিয়াছে। এখন আর বাপ্পী'র মত অলস কর্মকর্তার কোনই দরকার নাই।
০৬। নির্দেশ দাতাদের নির্দেশ পালনে অসমর্থা। তাহারা কি বলিতে চায় আমি ঠিক মত বুঝিতে পারছিনা।

০৭। অনেকে মনেকরে আমি থাকলে তার কাজে বাধা দিবো। তাই আমি নিজেই আলাদা হয়ে গেলাম।

০৮। মনের স্বাধীন ভাবে কাজ করিতে পারছিনা।কাজে স্বাধীনতা না থাকলে কাজ করে ভালো লাগে না।

০৯। বর্তমান অফিস নিয়ম-কানুন ভালো লাগছে না।

১০। অনেকদিন তো গত হইলো এ প্রতিষ্ঠানে আর কত। আমি গেলে নতুন একজন আসিবে। নতুনরা সুযোগ পাইবে।

প্রথম যোগদানের সময় অঙ্কুরে থাকবো ভেবেছিলাম ১ বছর। সেখানে প্রায় ২ বছর চলে গেলো। তবে আরো কিছুদিন থাকার ইচ্ছা ছিল। ছোটকাল থেকেই নতুন মানুষের সাথে পরিচিত হতে আমার বেশ কষ্ট হয়। আবার যাকে ভালো লাগে তার সাথে অনেক দিন / আজীবন সম্পর্ক রাখার চেষ্টা করি।

নতুন একটা সুযোগের অপেক্ষায় ছিলাম। এখন তার পিছনে ছুটলাম। এখন বিষয় ভাগ্য আমাকে কোন দিকে নিয়ে যায় সেটাই দেখার বিষয়।

Thursday, May 5, 2011

First Step of my Dream

ভাগ্য বড়ই উদাসীন ….............

কিছুটা প্রথম থেকে শুরু করছি। যখন বুঝতে শিখলাম মানে আমাকে বেচে থাকার জন্য কিছু একটা করতে হবে। কি করবো? কি করবো? কি করবো? আমার প্রথম পছন্দ নিজে কিছু করা। মানে স্বাধীন ভাবে কিছু করা। তার জন্য দরকার সামর্থ্য। কিন্তু আমি তো কিছুই পারি না!!!!!

জন্ম গত ভাবে আমার টেকনিকেল কাজের প্রতি আগ্রহ অনেক। কিভাবে যেন একা একা রেডিও, টিভি, বিভিন্ন ইলেকট্রিক্যাল যন্ত্রপাতি ঠিক করতে পারতাম। পরিবারে সবাই ভাবল ছেলেকে ইঞ্জিনিয়ার বানাবো। ইঞ্জিনিয়ার হবার জন্য স্বপ্ন ছাড়া আর কিছুই আমার কাছে নেই। তারপর কেটে গেল অনেক বছর........

আমার পরিবারে আমিই প্রথম চাকরি করি। আমার ঠাকুর দাদা (বাবার বাবা) কিছুদিন খুলনার খালিসপুরে অবস্থিত পিউপিল'স জুট মিলে (People's Jute Mills) চাকরি করেছেন। আর আমার চাকরির মেয়াদ ৭ বছর।

আমার প্রথম চাকরি জীবন শুরু আমার এক কম্পিউটার শিক্ষকের হাত ধরে। যার কাছে আমি চির কৃতজ্ঞ। প্রথম চাকরি ছেড়ে দেবার পর থেকেই মাথায় শুধু একটা স্বপ্ন একসময় একজন বড় ব্যবসায়ী হবার। আমাকে হতেই হবে। আমার সৌভাগ্য এখন পর্যন্ত যত গুলা চাকরি করেছি তার প্রতিটিই ছিল ম্যানেজমেন্টের বা Boss দের খুব কাছ থেকে দেখার সুজোগ।

একটি কথা এখন খুব মনে পরছে। আমার প্রথম চাকরি যেখানে করতাম সেখান কার এমডি মিঃ রবিন স্যার বলেছিলেন, “ ... তুমি তোমার রুমে বসে যদি বলতে পারো ক্লাস রুমের কোন কম্পিউটারে কি সমস্যা তাহলে সেদিন বুঝতে পারবে তুমি তোমার কাজে মনযোগী আছ।”

আমার এক শিক্ষক বলতেন, “ .... এই পৃথিবী থেকে যতটুকু সেবা তুমি নিবে তার চেয়ে বেশি কিছু দেবার চেষ্টা করিও। যাতে পরবর্তী প্রজন্ম তোমাকে দোষারোপ করতে না পারে।”

আমি ২০০৬ সালটা কাটাই গাজীপুরের একটা টেক্সটাইল মিলে। সেখানে চাকরি করার সময় আমাদের যে পরিচালক (প্রতিষ্ঠানের মালিক)। মিঃ সাহা স্যার বলতেন “ ..... তুমি যদি ভাল মালিক হতে চাও আগে অফিসের দারোয়ান হতে শুরু করে উপর মহল (Top label) পর্যন্ত কার কি কাজ তা ভালো ভাবে জানতে ও শিখতে হবে। তাহলে তোমার অফিসে কে কোথায় কিভাবে কাজে ফাকি দিচ্ছে বা দিতে পারে তা তুমি সহজে ধরতে পারবে।”

আপনাদের কারো কথা ভুলিনি জনাব :):):)। এখন সময় এসেছে নিজে কিছু করার।স্বপ্নকে বাস্তবে রূপদান করার জন্য কাজ করতে হবে। এখন সেই পথ ধরে হাঁটছি। যারা আমার সহযোদ্ধা তাদের প্রতি আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা ও ভালবাসা । যারা আমাকে ভালবাসেন তাদের কাছে আশির্বাদ চাই আর যারা আমাকে ঘৃণা বা অপছন্দ করেন তাদের জন্য আমার শুভ কামনা।